Fascist Awami rule is ruining the country

This is a recent photo from Bangladesh. A hungry man is feeding himself with some leftover food he found by the road, the photo shows. The adjacent vehicle with the embossed insignia on it shows that it belongs to Bangladesh police. The frame shows what we know as Sheikh Hasina’s so-called development in Bangladesh.

A mafia gang took away people’s rights to vote, fraudulently came to power and has formed a fascist government which is looting the country in all possible ways it can. And, the international community is aware of the situation in Bangladesh.

Many years later, it will be called a staged photo and that it was shot to embarrass and trouble the currently ruling party of Awami League. We all know how the pro-Awami League groups claim that “Jaal Pora Basanti” or Basanti in Fishing Net- the famous photo of the 1974 famine in Bangladesh- was staged to trouble Mujib government and his party.

Awami League has destroyed the state of Bangladesh in the past decade on the pretext of establishing the spirit of the Liberation War. All fascist rulers use some pretexts to establish certain principles or ideals in an attempt to legitimise their misuse of power or rule of persecution. On its mission to establish the fascist rule in the country, Awami League got immense support from the urban middle class, so-called cultural elite, most Hindus and, unfortunately, a large section of the Leftist community. These Communists disbanded their party when Sheikh Mujib introduced a single-party system of BaKSAL in Bangladesh.

All those who criticised the Awami rule were branded Islamist militants, before being eliminated. Awami rule has let India turn Bangladesh into its new colony. If this Awami rule continues longer, Bangladesh might find it difficult to retain its existence as an independent sovereign state.

In the interest to save the sovereignty and people of Bangladesh we urgently need to unite on a platform, irrespective of our views and political allegiance.

It is the duty of every patriot to free our motherland from the clutches of the fascist monster. I hope, the creator will help us succeed in our mission by guiding us on the right path.

Click here to read the original Facebook post

ছবিটা বাংলাদেশের। সাম্প্রতিক ছবি এটা। দেখা যাচ্ছে এক যুবক রাস্তার ধারে ফেলে দেয়া খাবার তুলে খাচ্ছে। পাশেই বাংলাদেশ পুলিশের লোগো ও বাংলায় “পুলিশ” লেখা সহ একটা গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে।

এটাই হাসিনার তথাকথিত উন্নয়ন। বাংলাদেশে অবাধ লুটপাট চলছে। আর একদল প্রতারক মাফিয়া জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে ক্ষমতায় অবৈধভাবে বসে থেকে ফ্যাসিস্ট শাসন চালাচ্ছে, এটা সারা দুনিয়ার মানুষ জানে।

আজ থেকে অনেক বছর পরে বলা হবে এটা একটা সাজানো ছবি এবং আওয়ামী লীগ সরকারকে বিপদে ফেলতে এই ছবি তুলে প্রচার করা হয়েছে। ঠিক যেভাবে আজকে বলা হয় ১৯৭৪ সালে দুর্ভিক্ষের সময় বাসন্তীকে জাল পরিয়ে ছবি তুলে শেখ মুজিব সরকারকে বিপদে ফেলা হয়েছিলো।

বাংলাদেশ রাষ্ট্রটাকে আওয়ামী লীগ গত দশ বছরে ধ্বংস করেছে। ধ্বংস করেছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠার দোহাই দিয়ে। যেভাবে সকল ফ্যাসিস্ট শাসক তার ক্ষমতা ও দমন পীড়নের বৈধতা দেয়ার জন্য কোন আদর্শ প্রতিষ্ঠার দোহাই দেয়। আওয়ামী লীগকে তার এই ফ্যাসিস্ট মিশনে সাহায্য করেছে বাংলাদেশের আরবান মিডল ক্লাস, বাংলাদেশের অধিকাংশ হিন্দু সম্প্রদায় আর সো-কল্ড কালচারাল এলিট এবং, দুর্ভাগ্যজনক ভাবে, বাংলাদেশের বামপন্থীদের বড় অংশ। বাংলাদেশের সেই বামপন্থীরা হাসিনার পিতা শেখ মুজিবের একদলীয় স্বৈরশাসন বাকশালে নিজেদের দলকে বিলীন করেছিলো।

যারাই আওয়ামী শাসনের সমালোচনা করেছে তাদের সবাইকে এই আওয়ামী সমর্থক গোষ্ঠী ইসলামী জঙ্গিবাদী ট্যাগ দিয়ে নির্মূল করেছে।

আওয়ামী শাসন বাংলাদেশকে ভারতের নয়া উপনিবেশ বানিয়েছে। আওয়ামী ফ্যাসিস্ট শাসন দীর্ঘায়িত হলে বাংলাদেশ রাষ্ট্র তার স্বাধীন অস্তিত্ব নিয়ে টিকে থাকবে কিনা সন্দেহ।

বাংলাদেশকে বাঁচাতে, বাংলাদেশের মানুষকে বাঁচাতে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বাঁচাতে সকল দেশপ্রেমিক মানুষের দল মত নির্বিশেষে ঐক্য দরকার। মাতৃভূমিকে ফ্যাসিস্ট দানবের কবল থেকে মুক্ত করা সকল দেশপ্রেমিকের কর্তব্য। সৃষ্টিকর্তা আমাদের এই মহান লড়াইয়ে কামিয়াব হবার তৌফিক দান করুন।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Share

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on email

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Feeling social? comment with facebook here!

Subscribe to
Newsletter