Miseries of people in Bangladesh will not end as long as the oppressive ruler is in power

She feels sad only when her party colleagues die.

Thousands of people are dying in the country after being denied basic medical treatment at hospitals. Many patients are jostling to share one oxygen cylinder in some hospitals. The health care system is crumbling as the country faces a deepening humanitarian crisis. This scenario does not make her feel sad, disturbed or ashamed.

Weeks ago, we alerted that the health care system was teetering on the brink of collapse. But they called us rumour-mongers and even threatened action against us. Should she not feel at least ashamed for the failure to provide basic or minimum health care service to the citizens?

Everyone knows how her party workers rigged the general elections massively and she became the PM, by taking recourse to fraudulent means. Her party did not come into power through any fair elections. She just looted the power. The miseries will continue to torment Bangladesh as long as the oppressor holds on to power.

Click here to read the original Facebook post

তার দলের সহকর্মীরা মারা গেলেই কেবল তিনি দুঃখ পান।

দেশে হাজার হাজার মানুষ হাসপাতালে চিকিৎসা না পেয়ে মারা যাচ্ছে। অনেক রোগীকে কয়েকটি হাসপাতালে একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার ভাগাভাগি করতেও লড়তে হচ্ছে। স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা ভেঙে পড়ায় দেশ এখন ক্রমবর্ধমান মানবিক সংকটের মুখোমুখি। এই অবস্থা তাকে দুঃখিত, উদ্বিগ্ন বা লজ্জিত করে না।

কয়েক সপ্তাহ আগে, আমরা সতর্ক করেছিলাম যে, স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা ধ্বংসের দাড় প্রান্তে। তবে তারা আমাদের গুজব প্রচারকারী বলে অভিহিত করে, এমনকি আমাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকি দেয়। নাগরিকদের মৌলিক বা ন্যূনতম স্বাস্থ্যসেবা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় তিনি কি অন্তত লজ্জা বোধ করবেন না?

সকলেই জানেন যে, তার দলের কর্মীরা কীভাবে সাধারণ নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি করেছিল এবং প্রতারণামূলক উপায়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী হন। তার দল কোনও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসে নি। তিনি ক্ষমতা লুট করেছেন। যতদিন অত্যাচারী শাসক ক্ষমতায় থাকবে, ততদিন দুর্দশাগুলি বাংলাদেশকে নিদারুণ যন্ত্রণা দিয়ে যাবে।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Share

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on email

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Feeling social? comment with facebook here!

Subscribe to
Newsletter